দুটি কবিতা ॥ মিন্টু সারেং

0
106
views

প্রিয়তি 
বারন্দার হাত ঠেকিয়ে দুরে কি দেখস তুই।
নীল আকাশ নাকি দিগন্তরেখা।
নাকি হাতছানি দেয়া জীবনের অপ্রাপ্তি, কোন সূবর্ন রেখা।
উড়ে যাওয়া কোন সোনালি স্বপ্নের ফানুস,
বাতাসে মেঘ হয়ে ভেসে যাওয়া জমে থাকা অন্তর বৃষ্টি,
তোকে ভিজিয়ে দেয়া চৈতালি অনুভুতি।

একুশের সীমান্ত ঘিরে তোর বয়ে যাওয়া যৌবন নদী,
বড় অশান্ত প্রিয়তি,তোর শারীরীক কার্নিশে
আজ কত রঙের খেলা,বাহারী ফুল ফুটেছে টবে,
পরিচর্যার সে পরিব্রাজক, কোথায় কোন সমুদ্রে।

প্রিয়তি,
কি দেখস বারান্দায় হেলান দিয়ে,
তোর নির্নিমেষ চেয়ে থাকা অন্তর পোড়ায় কবির
কেবল মমতা জাগায়,জাগায় প্রেম অনন্তের,
তুই আমার প্রেম প্রিয়তি
তুই আমার অনন্ত বাসর।

এখনো হাঁটছি নিরন্তর
বেলা বাড়ার সাথে সাথে হাঁটা শুরু করেছি
আমি এখনো হেঁটে চলেছি নিরন্তর,
দিনের আলো পেরিয়ে সূর্য এখন মধ্য গগনে
কিছু ক্ষনের জন্যে থেমেছিলাম
তখন ছিলাম মাতৃজঠরের ক্রান্তিকালের
ম্লান আলোয়, বিকালের প্রচ্ছায়ায় আপ্লোত গৌধুলি।

নদী পাড়ের বিষণ্ণ মাঝির সাথে বসেছিলাম
সবুজ ঘাসের পাড়ে,আমাদের মাথা ছুয়ে
উড়ে গেলো একঝাঁক গাং – শালিক উত্তরে।
মাঝিকে শুধালাম, মাঝিভাই কেমন আছে?
‘আমাদের জীবন- নদী’
অদ্ভুত সে। সে বিকেলের ম্লানহাসি,হেসেছিল মাঝি,
সোনা রোদ আমার পা ছুয়ে নেমে গেলো ধীরে,
মেঘনার ঘোলাজলে।
দৃষ্টিতে ভেসে থাক নিঝুমদ্বীপের স্বর্ণালি ছায়া
মনছুটে যায় মনপুরায় এ যেন গাঙচিল পাখি।

বিষণ্ণ বিকেল কার কাছে গেলাম?
সে আমি এখনো বুঝিনি,আমিতো চলেছি হেঁটে
পৃথীবির প্রথম মানুষ, আদম যেভাবে হেঁটেছে,
চন্দ্রহীন রাত্রি পেরিয়েছি অমাবস্যার আলোয়
হেঁটে চলেছি এখনো পৃথীবির পথে,
যেমন হেঁটেছে ‘ম্যাক্সি গোর্কি’
মাতৃহীন অনাথ বালক, হাঁটে প্রতিদিন লোকালয়
আমাদের চারপাশে,বেদনার অমিশ্রিত রঙে।

মনভাংগা পানশি জূড়ে কালো মেঘ ছুয়ে যায়
অবারিত বৃষ্টির প্রান্তর, ছুয়ে যাওয়া দিগন্তপানে
শুধু অস্তরাগের খেলা,হেঁটেতো চলেছে,
মেঘ ভেজা অন্তর,
কেটেছে কত দিন, চোখ জুড়ে থাকা প্রানন্ত সবুজ।
হেঁটেতো চলেছি আমি দুরন্তর, বালক অবুঝ।
একদিন সকলই শেষ হবে
আমার এই হেঁটে চলা নিরন্তর থেকে যাবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here