রূপচর্চার যত আজব উপায়

0
169
views

আমরা রূপচর্চায় এলোভেরা, হলুদ, ডিম, দুধ, আটা-ময়দা থেকে শুরু করে আপেল, কমলা এমন কি শাক-সবজি পর্যন্ত ব্যবহার করে থাকি। এমন কি বাদ যায় না চালের পানি পেঁয়াজ, রসুনও। তাহলে আর সাপ, মাছ, শামক, জোঁক বাদ যাবে কেনো? জি এটা কোনো হাঁসির বা মজা করার জন্য বলা হচ্ছে না। পৃথিবী জুড়েই এখন নানান দেশে রূপচর্চায় ব্যবহার করা হচ্ছে সাপ, মাছ, শামক, জোঁক এবং আরো অনেক কিছুই। আসুন দেখে নেই তেমনই কিছু অদ্ভুত এবং আজব উপায়।

আমরা রূপচর্চায় এলোভেরা, হলুদ, ডিম, দুধ, আটা-ময়দা থেকে শুরু করে আপেল, কমলা এমন কি শাক-সবজি পর্যন্ত ব্যবহার করে থাকি। এমন কি বাদ যায় না চালের পানি পেঁয়াজ, রসুনও। তাহলে আর সাপ, মাছ, শামক, জোঁক বাদ যাবে কেনো? জি এটা কোনো হাঁসির বা মজা করার জন্য বলা হচ্ছে না। পৃথিবী জুড়েই এখন নানান দেশে রূপচর্চায় ব্যবহার করা হচ্ছে সাপ, মাছ, শামক, জোঁক এবং আরো অনেক কিছুই। আসুন দেখে নেই তেমনই কিছু অদ্ভুত এবং আজব উপায়।

স্নেইল ফেসিয়াল: বিদেশি ত্বক চর্চার নানা পদ্ধতির মধ্যে এটিও এখন বেশ জনপ্রিয়। একাধিক শামুক ২০ মিনিট ধরে মুখের ওপর বসিয়ে দেওয়া হয়। শামুকের শ্লেষ্মার স্পর্শে ত্বকের হারানো চমক ফিরে আসবে বলে অভিমত। বিশেষজ্ঞদের মতে শামুকের শ্লেষ্মায় ত্বকের উপযোগী প্রোটিন, অয়ান্টি-অক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টিব্যাকটেরিয়া রয়েছে। যা ত্বকের বলিরেখা কমিয়ে ত্বককে সজীব দেখায়।

স্নেক ম্যাসেজ:  সাপ দেখে আপনি যতই ভয় পান কোনো লাভ নেই। যদি নিজের ত্বকের যৌবন ও লাবণ্য ধরে রাখতে চান তাহলে আপনাকে সাপের ম্যাসেজ নিতে হবে। ইসরাইলে রুপচর্চার এই পদ্ধতি অনেক জনপ্রিয়তা লাভ করেছে।

ফিশ স্পা:  যেখানে ছোট ছোট মাছ ভর্তি পানির মধ্যে পা ডুবিয়ে দেওয়া হয়। এটা করা হয় যাতে মাছগুলো খুঁটে খুঁটে পায়ের মরা চামড়া খেয়ে পা পরিষ্কার করে দেয়।

পাখির মল:  অদ্ভুত বিউটি ট্রিটমেন্টের তালিকায় রয়েছে রূপ ও চেহারায় যৌবন ধরে রাখতে ত্বকে পাখির মলের ব্যবহার। পাপিয়া বা নাইট্যাঙ্গল পাখির মল ত্বকের পক্ষে খুব উপকারী। মুখে লাগিয়ে এটি ভালো করে মালিশ করা হয় যাতে মুখের কালচে দাগ দুর করে, ত্বকের উজ্জ্বল্য ফেরায়।

ফেস স্ল্যাপিং:  স্ল্যাপিং অর্থাৎ চড় মারা। ১০-১৫ মিনিটের এই ফেস স্ল্যাপিং ট্রিটমেন্টটিতে গালে চড় মারা ও চিমটি দেওয়া হয়। এর ফলে বলিরেখা দুর হয় এবং মুখের উন্মুক্ত রোমকুপের সমস্যা দুর হয়।

চুলে ষাঁড়ের বীর্য:  লন্ডনে এই বিউটি ট্রিটমেন্ট খুব জনপ্রিয়। চুলের সৌন্দর্যের জন্য ব্যবহৃত নানা দ্রব্যের সঙ্গে ষাঁড়ের বীর্য মিশিয়ে চুলে লাগানো হয়। ষাঁড়ের বীর্যে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন থাকে যা চুলকে শক্ত করে, ক্ষতিগ্রস্ত চুলকে ঠিক করে এবং চুলে নতুন উজ্জ্বল্য আনে।

এছাড়াও কিছু কিছু বিউটি ট্রিটমেন্টের রয়েছে যা শুনলে রীতিমতো আপনার গা গুলিয়ে উঠবে। তবে যদি সাহস থাকে তাহলে একবার ট্রাই করে দেখতে পারেন এই বিউটি ট্রিটমেন্টগুলো।

কুমিরের মলের ফেসপ্যাক:  গ্রিস ও রোমে প্রাচীনকালে বিউটি ট্রিটমেন্ট হিসেবে কুমিরের মলের ফেসপ্যাক ব্যবহার করা হত। এখনো এর প্রচলন রয়েছে কিছু কিছু জায়গায়।

ত্বকে কেঁচো: শরীরে ও ত্বকের বিষাক্ত সংক্রমণ কমাতে কেঁচোর প্রয়োগ করা হয়। এক্ষেত্রে কেঁচোকে ওযুধ হিসেবে ব্যবহার করা হয়। কেঁচো শরীরের বর্জ্য পদার্থ, বিষাক্ত পদার্থ শরীর থেকে বের করে দেয়। কেঁচোকে শরীরের ওপর রাখা হলে তা শরীর থেকে বিষাক্ত পর্দার্থ চুষে বের করে নেয়।

শিপ এমব্রায়ো সেল ট্রিটমেন্ট :  নিজেদের যৌবন ধরে রাখতে ভেঁড়ার ভ্রূণের কোষ ইনজেকশনের মাধ্যমে শরীরের ভিতরে ঢোকানো হয়। গায়িকা ডেবি হ্যারি এই চিকিৎসা করান দীর্ঘসময় ধরে যাতে তার শরীরে বয়সের ছাপ না আসে তার জন্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here