বিজয় আমাদের ও অন্যান্য ॥ শাহরিয়ার রুদ্র

0
107
views

বোধের নিবিড় বোঝাপড়া
অনিশ্চিত আঁধারে আমি আজও দাঁড়িয়ে…
নিমিলিত মধ্যাহ্নের তপ্ত ভাঁজে ভাঁজে
লুকিয়ে থাকা রুধিক্ষরণ—এখন উত্তাল উদ্দাম।
বসন্তের স্নিগ্ধ সুগন্ধ মাখা সকাল- লন্ড্রি করে
কম্বলের সাথে তুলে দিয়েছি সৌখিন ওয়ারড্রবের
শীতল তাকে… সেই অলস অপরাহ্নে।
স্বপ্ন সিদ্ধ গণতান্ত্রিক বিধিমালায় মাংসভূক হায়েনারা
এখন দাঁতের রস খসায় অবিরাম।
তা দেখে শকুনেরা ঠোকর প্রতিযোগিতায় নামে
গো- ভাগারে শত শত মৃত পশুর শরীর
করে ব্যবচ্ছেদ—
চলে ভোক্ষণ মহাসমারোহে.. কাক শকুন
শিয়াল হায়েনার!

এসব দেখে দেখে হাঁপিয়ে উঠেছি
অস্থির আমি.. একটা কাঙ্ক্ষিত উজ্জ্বল
স্বর্ণালি সকালের জন্য!

অপরাহ্নের শেষ প্রহরে দাঁড়িয়ে
প্রতিদিন ভোর হয়
আধার সরে গিয়ে আমাজানের আকাশ
স্বচ্ছ হয়ে আসে
সূর্য কৈশর শৈশব ছাড়িয়ে মধ্য গগনে যায়।
অতঃপর ধীরে ধীরে একই নিয়মে আবার
বার্ধ্যক্যে জীর্ণতায় বিষণ্নতায়
গোধূলীর ধূসর পেট চিরে ফিরে যাওয়া তার
আপন নিভৃত কুলায়,
শত সমুদ্রের শত আধার মরীচিকা সাঁতরে
একটি প্রত্যুষের আয়োজন
নব দিগন্তে নববার্তায় নবজীবনের নয়া নিশান
উড়িয়ে
একটি লাল গোলাপের প্রস্য্যফুটনের তীব্র প্রভাবে
উদয়ন।
হে সূর্য, এভাব বিমূর্ত জীবনের পরম উষ্ণতা দিয়ে
আর কত —আর কতদিন প্রাণবন্ত প্রাণোচ্ছ্বাসে
ভরিয়ে রাখবে তুমি
মানুষ নামের অধির নিগ্রহ বিলাসী ধূর্ত ক্যানিব্যালিস্টদের?
আমি অপরাহ্নের শেষ প্রহরে আজও…
সেই একই ঘোষণায় বিভোর থাকি—
আধার আমার সহনীয় নয়
আধারকে আমি ঘৃণা করি…ঘৃণা করি;
হে সূর্যদেব, ঐ দিগন্তে হারাবার লুকোচুরির
কি শেষ হবে না কখনো—কোনোদিন?
আমার শেষ নিঃশ্বাস আমাজানের শেষ অন্ধকার হোক।
হিমালয়ের মতো মাথা তুলে তুমি বেঁচে থাকবে

বিজয় আমাদের!
একাত্তরের বিবর্ণ— বিষণ্ন বিদগ্ধ সময়ের

গর্ভ চিরে… জন্ম তোমার
হে অমর বিজয়
বিজয় তুমি আমাদের
একাত্তরের ভীত সন্ত্রস্ত নির্যাতিত
লাঞ্ছিত কুমারী মাতার গর্ভে জন্ম তোমার
হে অমর বিজয়
তুমিতো আমাদের…আমাদের আত্মার,
আজ ছয়চল্লিশতম জন্ম বার্ষিকীতে স্যালুট তোমায়
তুমি বেঁচে থাকবে—সব শত্রুর নাগপাশ ডিঙিয়ে
হিমালয়ের মতো মাথা তুলে
তুমি বেঁচে থাকবে,
হে আমার আজন্ম অহংকার
হে আমার আত্মার বিজয় !
তুমি নিশ্চিত বেঁচে থাকবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here